শ্রীপুরে প্রধানমন্ত্রীকে কটুক্তির প্রমাণ তদন্ত প্রতিবেদনে ॥ প্রেসক্লাব পদ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার আব্দুল মালেক[যায়যায় সময়]

Top News শিরোনাম সারাদেশ

নিজস্ব প্রতিবেদক:
যায়যায় সময়.কম

গাজীপুরের শ্রীপুর প্রেসক্লাবের সাময়িক বহিষ্কৃত সাধারণ সম্পাদক আব্দুল মালেককে এবার স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করা হয়েছে। বুধবার সন্ধ্যায় শ্রীপুর প্রেসক্লাবে অনুষ্ঠিত এক সাধারণ সভায় সর্বসম্মতিক্রমে ওই সিদ্ধান্তের ঘোষণা দেয়া হয়।

এ সংক্রান্ত গঠিত একটি তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন ও অভিযুক্ত আব্দুল মালেকের কারণ দর্শানো নোটিশের জবাবের ওপর ভিত্তি করে ওই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে বলে প্রেসক্লাবসুত্র জানিয়েছে।

সভায় প্রতিবেদন উপস্থাপন করেন শ্রীপুর প্রেসক্লাবের খ-কালীন (ভারপ্রাপ্ত) সাধারণ সম্পাদক বশির আহমেদ কাজল। তিনি বলেন, তদন্ত কমিটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুকে কটুক্তির প্রমাণ পান। সরকারী আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী সংস্থা থেকেও একইরূপ প্রমানের কথা তদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়। এ বিষয়ে তদন্ত কমিটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অভিযুক্ত আব্দুল মালেক কর্তৃক তার ফেইসবুক ওয়ালে দেয়া একাধিক মন্তব্যের প্রিন্ট কপি সংযোজন করেন। শ্রীপুর প্রেসক্লাবের গঠণতন্ত্রমূলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে কটুক্তি করে রাষ্ট্রবিরোধী কর্মকান্ডেও তিনি অভিযুক্ত হয়েছেন।

তদন্ত কমিটির সদস্যরা ছিলেন দৈনিক বাংলাদেশ প্রতিদিনের সাংবাদিক মাহবুবুর রহমান, দৈনিক আজকালের খবরের সাংবাদিক মোতাহার হোসেন ও দৈনিক আলোকিত সময়ের সাংবাদিক এস এম সোহেল রানা।

এছাড়াও সভায় অভিযুক্ত আব্দুল মালেকের কারণ দর্শানো নোটিশের জবাবের কথা উল্লেখ করে বলা হয়, অভিযুক্ত নিজে স্বীকার করে নিয়েছেন তার আইডি থেকে কে বা কারা সুকৌশলে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নামে আপত্তিকর মন্তব্য করেছে। এ বিষয়টি তার জানা নেই। “জানা নেই” বলে এক্ষেত্রে এড়িয়ে যাওয়ার সুযোগও নেই।

সাধারণ সভায় উপস্থিত সদস্যবৃন্দ এ ঘটনায় অভিযুক্তকে তার পদ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের আবেদন উঠে। একইসাথে এরকম কটুক্তি রাষ্ট্রদ্রোহীতা ও শ্রীপুর প্রেসক্লাবের গঠণতন্ত্রের পরিপন্থী বলে উত্থাপিত হয়। পরে তাকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়। তবে অভিযুক্তের নামে আদালতে তথ্যপ্রযুক্তি আইনে দায়ের করা মামলার সিদ্ধান্ত মোতাবেক শ্রীপুর প্রেসক্লাবে তার সাধারণ সদস্যপদ থাকা না থাকার বিষয়টি নির্ভর করবে বলেও সভায় সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়।

শ্রীপুর প্রেসক্লাবের সভাপতি অধ্যক্ষ নূরুন্নবী আকন্দের সভাপতিত্বে ও ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক বশির আহমেদ কাজলের পরিচালনায় সভার কার্যক্রম অনুষ্ঠিত হয়।

প্রসঙ্গত, অভিযোগ ও ফেইসবুক ওয়ালের বিভিন্ন আইডি পর্যবেক্ষণ করে দেখা গেছে, ২০ মে দিবাগত রাত সাড়ে ১২টার দিকে ফেইসবুক পেইজ “হৃদয়ে বাংলাদেশ” নামক একটি আইডি থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার শৈশব কালের একটি ছবিতে “ইনি কে হতে পারেন”প্রশ্ন ছোঁড়ে দেয়া হয়। ওই পোস্টের মন্তব্যে অভিযুক্ত আব্দুল মালেক উল্লেখ করেন “সারা বিশ্বের শ্রেষ্ঠ ডায়নী”। মন্তব্যের ২৪ ঘণ্টার মধ্যে বিষয়টি ফেইসবুকে ভাইরাল হয়ে উঠে।

গণমাধ্যমের দায়িত্বপ্রাপ্ত একজন ব্যাক্তির এমন আচরনের প্রতি ক্ষুব্ধতা প্রকাশ করে নানা শ্রেণীর মানুষ। শ্রীপুর প্রেসক্লাব থেকেও তাকে সাময়িক বহিষ্কার করে কারণ দর্শানো নোটিশ, তদন্ত কমিটি গঠণসহ নানা পদক্ষেপ নেয়া হয়। অন্যদিকে, তথ্য প্রযুক্তি আইনে তার বিরুদ্ধে শ্রীপুর থানায় একটি মামলাও দায়ের করা হয়। ওই মামলায় ৫ জুন অভিযুক্ত আব্দুল মালেক হাইকোর্ট থেকে জামিনে রয়েছেন।
………………………………………………………………………………………………………………………………………………………………………………………………………….. সবার আগে সর্বশেষ সংবাদ পেতে এখনই যায়যায় সময়.কম এর পেইজে লাইক দিয়ে যায়যায় সময় এর সাথেই থাকুন।

যায়যায় সময় এ কবিতা,ছড়া,গল্প, ও বিজ্ঞাপন প্রকাশ করতে চাইলে আমাদের ইমেইল করতে পারেন।
Email : jaijaisomoy24@gmail.com

অথবা লগইন:- করুন www.jaijaisomoy.com
Facebook Loging করুন ……..ফেইসবুকে বাংলায় লিখুন:- যায়যায় সময়.কম
Twitter..a….. Loging করুন …….JaiJai Somoy
Google+……a..Loging করুন …….JaiJai Somoy

লাইক, কমেন্ট, শেয়ার করুন।

এগিয়ে যাব সত্যের সাথে যায়যায় সময়.কম।